২০২০ বইমেলার জন্যে পাণ্ডুলিপি আহবান করেছে পাপড়ি                 দ্রুত টাইপ শেখার কৌশল                 দেশে বেকারের সংখ্যা ২৬ লাখ ৭৭ হাজার                 কেন সরকার খালেদাকে জেলে রাখল, সংসদে ব্যাখ্যা দিলেন রুমিন ফারহানা                 উন্নতি চাইলে গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি মেনে নিতে হবে: প্রধানমন্ত্রী                 এইচএসসির ফল ১৭ জুলাই                 মুসলিম হত্যায় প্রতিবাদকারীদের আটক করছে ভারতীয় পুলিশ                

কবি দিলওয়ারের চতুর্থ প্রয়াণ দিবস

: সোনার সিলেট
Published: 10 10 2016     Monday   ||   Updated: 10 10 2016     Monday
কবি দিলওয়ারের চতুর্থ প্রয়াণ দিবস

‘‘পদ্মা-মেঘনা সুরমা যমুনা গঙ্গা কর্ণফুলী, তোমাদের বুকের আমি নিরবধি গণমানবের তুলি”- নিজের আত্মপরিচয়কে এভাবেই তুলে ধরেছিলেন কবি দিলওয়ার। সিলেটের প্রাণ ইতিহাস-ঐতিহ্যের অন্যতম স্বাক্ষী লর্ড ক্বীন কর্তৃক নির্মিত ক্বীনব্রিজকে নিয়ে লিখেছিলেন ‘ক্বীনব্রিজের সূর্যোদয়’। তাঁর কবিতায় স্বত:স্ফূর্তভাবে উঠে এসেছে সাধারণ মানুষের কথা। আর এ জন্যই সিলেটের মানুষের কাছে তিনি ‘গণমানুষের কবি’।

আজ সোমবার (১০ অক্টোবর) একুশে পদকপ্রাপ্ত এই কবির চতুর্থ প্রয়াণ দিবস। ২০১৩ সালের এই দিনে সিলেটের দক্ষিণ সুরমার ভার্থখলাস্থ নিজ বাড়িতে কবির জিবনাবসান হয়। বাড়ির পাশেই শায়িত করা হয় তাকে। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিলো ৭৮ বছর।

পঞ্চাশের দশকের শক্তিমান ও নিভৃতচারী এই কবি রাজধানী ঢাকার মোহ ত্যাগ করে সিলেটে চালিয়ে গেছেন নিরলস সাহিত্য সাধনা। জীবনের শেষদিনটি পর্যন্ত তিনি আঁকড়ে ছিলেন পুণ্যভূমি সিলেটের মাটি। তার সাহিত্য চর্চায় প্রতিষ্ঠিত হয় কবি দিলওয়ার সাহিত্য পরিষদ।

দিবসটি উপলক্ষে ‘কবি দিলওয়ার পরিষদ’ কবির সমাধিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শ্রদ্ধাঞ্জলি জ্ঞাপন করবে আজ সকাল ৯ টায়। এছাড়া থাকবে আলোচনা সভা ও কবির রুহের মাগফেরাত কামনা করে প্রার্থনা মাহফিল।

স্বাধীনচেতা ও সংগ্রামী জীবনের অধিকারী ছিলেন গণকবি দিলওয়ার। তিনি গ্রিক, রোম থেকে শুরু করে পুরাণকে তৃতীয় দৃষ্টির আলোকে প্রকাশ করেছেন তাঁর কবিতায়। জীবনধর্মী-ইতিহাসবোধের কারণে তিনি প্রাগৈতিহাসিক কালকে টেনে আনেন তাঁর কবিতায়। তিনি লিখেছেন, ‘সেই আদি অকৃত্রিম আকাশের নীচে/ ধূলো বালি ঘাসের ওপরে/ আমি আছি, সেই আমি জন্ম পরম্পরা থেকে/ যে আমি এখন মানুষ!’

কবি দিলওয়ারের জন্ম ১৯৩৭ সালে সিলেট শহরের সুরমা নদীর দক্ষিণ পাড়ে অবস্থিত ভার্থখলা গ্রামে। তার পিতা মৌলভী মোহাম্মদ হাসান খান এবং মাতা মোসাম্মৎ রহিমুননেসা।

তাঁর প্রথম কাব্যগ্রন্থ ‘জিজ্ঞাসা’ প্রকাশিত হয় ১৯৫৩ সালে। তাঁর গ্রন্থগুলোর মধ্যে রয়েছে ‘ঐক্যতান’, ‘পূবাল হাওয়া’, ‘উদ্ভিন্ন উল্লাস’, ‘বাংলা তোমার আমার’, ‘রক্তে আমার অনাদি অস্থি’, ‘বাংলাদেশ জন্ম না নিলে ‘ উল্লেখযোগ্য। এছাড়া প্রবন্ধ, গান, ও ভ্রমণকাহিনীও লিখেছেন তিনি।

কবি দিলওয়ার ১৯৮১ সালে বাংলা একাডেমী পুরস্কার, ১৯৮১ সালে বাংলা একাডেমী ফেলোশিপ এবং ২০০৮ সালে একুশে পদক পান। এছাড়া লাভ করেছেন অসংখ্য সম্মাননা ও পদক।

দীর্ঘ ৬০ বছরব্যাপী সাহিত্যের প্রায় সকল বিষয় নিয়ে লিখে গেছেন দিলওয়ার। সমৃদ্ধ করেছেন বাংলা সাহিত্যকে। সমাজতন্ত্র ও জাতীয়তাবাদ এ দুটো বিষয় দিলওয়ারের বিভিন্ন লেখায় প্রকাশ পেয়েছে।




Share Button

আর্কাইভ

July 2019
M T W T F S S
« Jun    
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
293031  

Prayer Time Table

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ভোর ৩:৫১
  • দুপুর ১২:০২
  • বিকাল ৪:৩৭
  • সন্ধ্যা ৬:৪৭
  • রাত ৮:১১
  • ভোর ৫:১৩


Developed By Mediait