গান                 তিস্তা নদীতে নৌকা নয়, চলে গরুর গাড়ি                 ছড়া                 জামায়াত থেকে মঞ্জুকে বহিস্কার                 কিপ্টা দর্শন                 শুক্রবারে মৃত্যু চেয়েছিলেন, শুক্রবারেই বিদায় নিলেন কবি আল মাহমুদ                 বোমা ভেবে রাতভর বেগুন পাহারা                

পিছিয়ে নেই জামায়াত : লড়াই হবে ত্রিমুখী

: সোনার সিলেট
Published: 27 07 2018     Friday   ||   Updated: 27 07 2018     Friday
পিছিয়ে নেই জামায়াত : লড়াই হবে ত্রিমুখী
কামরুল আলম।। সিলেটে ধাক্কাধাক্কিটা শেষপর্যন্ত প্রধান ৩ দলের মধ্যেই হতে যাচ্ছে। অনেকেই মনে করছেন মেয়র নির্বাচিত হবেন কামরান, দ্বিতীয় হবেন আরিফ আর তৃতীয় হবেন জুবায়ের! আবার লোকমুখে এমন কথাও শোনা যাচ্ছে সুষ্ঠু নির্বাচন হলে মেয়র পদে বহাল থাকতে পারেন আরিফ, দ্বিতীয় হবেন কামরান এবং তৃতীয় হবেন জুবায়ের!
 
হিসেবটা অবশ্যই রাজনৈতিক দলের আকার-আকৃতি বিবেচনা করে করা হয়েছে। কিন্তু বিগত উপজেলা নির্বাচনে বড়োদলগুলোর মধ্যে প্রতিযোগিতার ফলাফলে ভিন্নচিত্র দেখা গেছে। সিলেট সদর উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে জামায়াতের প্রার্থী হয়েছেন প্রথম, আ’লীগ দ্বিতীয় আর বিএনপির প্রার্থী হয়েছিলেন তৃতীয়! অনুরূপ সিলেট নগরীর পার্শ্ববর্তী উপজেলা দক্ষিণসুরমায় আ’লীগ বিজয়ী হলেও নিকটতম ছিলেন সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান জামায়াতের লোকমান, তৃতীয় হয়েছিলেন বিএনপির সিলেট জেলা সেক্রেটারি আলী আহমদ। গোলাপগঞ্জ উপজেলায় বিশাল ব্যবধানে জামায়াতপ্রার্থী নজমুল বিজয়ী হলেও আ’লীগ ছিল দ্বিতীয় অবস্থানে এবং বিএনপি ছিল তৃতীয়। সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজারেও বিএনপি তৃতীয় স্থান লাভ করে। এভাবে প্রায় উপজেলাতেই দেখা গেছে বিএনপি, আওয়ামীলীগ এবং জামায়াতের মধ্যকার নির্বাচনী প্রতিযোগিতায় হয় আওয়ামলীগ নয় জামায়াত চ্যাম্পিয়ন বা রানার্সআপ হয়েছে। বিএনপিকে সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে তৃতীয় স্থান নিয়েই। এমনকি বিয়ানীবাজারে বিএনপির অবস্থান ছিল চতুর্থ!
সিটি নির্বাচনে জামায়াতের প্রার্থীকে নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা এবং জল্পনা-কল্পনার শেষ নেই। কিন্তু প্রথম বা দ্বিতীয় অবস্থান পেতে পারে জামায়াত এমনটা কেন মনে করা হচ্ছে না তা নিয়ে বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, সিলেট সিটিতে জামায়াতের প্রকৃত ভোট সংখ্যা কত তা নিয়েই সন্দিহান সকলে। এমনকি জামায়াত নিজেরাও এ ব্যাপারে নিশ্চিত নয়।
 
পর্যালোচনায় দেখা গেছে জামায়াত সর্বশেষ সিলেট পৌরসভা নির্বাচনে অংশ নিয়ে ৭০০০ ভোট পেয়েছিল। সেসময় বিএনপির আফম কামাল ১৩ হাজার ভোট পেয়ে বিজয়ী হন। সেই সূত্রে ধরে নেওয়া যায় বিএনপির ভোটের অর্ধেকের চেয়ে বেশি ভোট রয়েছে জামায়াতের। তাই স্বাভাবিকভাবেই জামায়াতের প্রার্থী এবার ৬০ থেকে ৭০ হাজার ভোট পেতেই পারেন। অন্যদিকে জাতীয় দৈনিক প্রথম আলোর এক রিপোর্ট থেকে জানা যায়, ‘কেন্দ্রীয় নির্দেশনায় সিলেট সিটি নির্বাচনে একটি সম্মানজনক অবস্থান তৈরির লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছেন জামায়াতের স্থানীয় নেতারা। গত বুধবার রাতে এ নিয়ে সিলেটে দলের দায়িত্বশীল নেতাদের একটি রুদ্ধদ্বার বৈঠক হয়। জামায়াত সূত্র জানায়, ওই বৈঠকে আলোচনা হয়েছে সিলেটের নির্বাচন জামায়াতের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। নির্বাচনে সব পর্যায়ে নেতা-কর্মী ও সমর্থকদেরও সর্বাত্মকভাবে প্রচার চালাতে বলা হয়েছে। এর অংশ হিসেবে আশপাশের জেলা থেকেও কর্মী-সমর্থকদের সিলেটে আনা হয়েছে। দলের নারী কর্মীরা বাসাবাড়িতে গিয়ে মেয়র প্রার্থীর জন্য ভোট চাইতে শুরু করেছেন।’ জামায়াতের প্রার্থী এবং দলীয় কর্মীরা ঘরে ঘরে গিয়ে মানুষের নিকট ভোট চাইছেন, প্রচারণায় এখন পর্যন্ত তারাই এগিয়ে রয়েছেন। তাই নিজেদের ভোটের সঙ্গে আরও ৩০ থেকে ৪০ হাজার ভোট বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা উড়িয়ে দেওয়া যায় না। এ ক্ষেত্রে জামায়াতের প্রার্থীর দ্বিতীয় স্থানে চলে যাওয়ারও সম্ভাবনা রয়েছে। এমনকি ভাগ্য অনুকূলে থাকলে বিজয়ী হয়ে চমক সৃষ্টি করতে পারে জামায়াত।
লেখক : রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও সম্পাদক- সোনার সিলেট ডটকম।
এসএস/ কেএ



Share Button

আর্কাইভ

February 2019
M T W T F S S
« Jan    
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
25262728  

Prayer Time Table

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ভোর ৫:১৯
  • দুপুর ১২:১৬
  • বিকাল ৪:১৬
  • সন্ধ্যা ৫:৫৭
  • রাত ৭:১১
  • ভোর ৬:৩১


Developed By Mediait