মাহমুদুরের ওপর হামলায় বিভিন্ন দল ও সংগঠনের নিন্দা                 বন্দরবাজার থেকে নগর জুড়ে এলাকায় টেবিল ঘড়ির সমর্থনে গণসংযোগ                 সম্মিলিতভাবে একটি ব্যবসাবান্ধব নগর গড়তে কাজ করব – আরিফ                 সমাজের পিছিয়েপড়া লোকদের জীবনমান উন্নয়নে ভবিষ্যতেও কাজ করবো : কামরান                 চিকিৎসার নামে ভারতে নিয়ে স্ত্রীকে দিয়ে দেহ ব্যবসা, আটক ৩                 লন্ডনীরোডে ৫ বছরের শিশুকে ধর্ষণ                 সেলিমের সরে দাঁড়ানোয় লাভবান হবে জামায়াত                

প্রতিটি জেলায় ফররুখ একাডেমি স্থাপন করতে হবে ॥ কবি আল মুজাহিদী

: সোনার সিলেট
Published: 01 07 2018     Sunday   ||   Updated: 01 07 2018     Sunday
প্রতিটি জেলায় ফররুখ একাডেমি স্থাপন করতে হবে ॥ কবি আল মুজাহিদী

নিজস্ব প্রতিবেদক।। বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে সিলেটে কবি ফররুখ আহমদের জন্মশতবর্ষ উদযাপন করা হয়েছে। শনিবার সাহিত্য-সংস্কৃতি অঙ্গনের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে অত্যন্ত আনন্দঘন পরিবেশ এই আয়োজন ছিল উপভোগ করার মতো। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বাধীনতাপদক প্রাপ্ত, বীর মুক্তিযোদ্ধা কবি আল মুজাহিদী বলেন, ফররুখ বাংলা সাহিত্যে অমর এবং অনন্য। বিশ্বজনীন আদর্শবাদকে উজ্জীবিত করে এমন সাহিত্য তিনি রচনা করে গেছেন। নির্দিষ্ট সীমারেখাহীন আদর্শবাদের চেতনায় বিশ্বাসী ফররুখকে বেশি বেশি করে চর্চা করতে হবে, জানতে হবে। তিনি দেশে প্রতিটি জেলায় ফররুখ একাডেমি স্থাপন করার আহবান জানান।
সিলেট নগরীর দরগাহ গেইটস্থ কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের শহিদ সুলেমান হলে কবি ফররুখ জন্মশতবর্ষ উদযাপন পরিষদ, সিলেট-এর উদ্যোগে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। পরিষদের আহবায়ক ভাষাসৈনিক অধ্যক্ষ মাসউদ খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- কবি ফররুখপুত্র  বিশিষ্ট সাংবাদিক আহমদ আখতার এবং মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন বিশিষ্ট শিশুসাহিত্যিক কবি সোলায়মান আহসান।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে কবি আল মুজাহিদী বলেন,  আমাদের অস্তিত্বকে রক্ষা করতে হবে। মুসলমানদের সোনালি ইতিহাস-ঐতিহ্যকে ধারণ করে ইস্পাত কঠিন ঐক্য নিয়ে সংগ্রাম এবং লড়াইয়ের মাধ্যমে অস্তিত্বকে রক্ষা করা সম্ভব। কবি ফররুখ আহমদ তাঁর সাহিত্যের মাধ্যমে মুসলমানদের মধ্যে রেনেসাঁর চেতনাকে সমুজ্জ্বল করার জন্য বুদ্ধিবৃত্তিক চেষ্টা করেছেন। মৌলিক কবি ফররুখ আহমদের সাহিত্য চর্চার মাধ্যমে মুসলমানরা তাদের ইতিহাস-ঐতিহ্যের সাথে পরিচয় লাভ করতে পারবেন বলে তিনি মনে করেন।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ফররুখপুত্র সাংবাদিক আহমদ আখতার বলেন, কবি ফররুখ তাঁর সাহিত্যের মাধ্যমে একটি স্বতন্ত্র ধারার সৃষ্টি করেছেন। একটি প্যারালাল সংস্কৃতির চিন্তায় উদ্বুদ্ধ হয়ে ফররুখ আহমদ পুঁথিসাহিত্যের মাধ্যমে বিশ্বজনীন আদর্শকে মুসলমানদের কাছে তুলে ধরেছেন। নৈতিক এবং মূল্যবোধের সাহিত্যচর্চায় কবি ফররুখ দিকপাল হিসেবে বেঁচে থাকবেন।

সভাপতির বক্তব্যে বিশিষ্ট ভাষাসৈনিক অধ্যক্ষ মাসউদ খান বলেন, ফররুখ আহমদ আমাদের চেতনার কবি। জাগরণের কবি। তাঁর সাহিত্যকে যতই চর্চা করবো, ততই আমরা সমৃদ্ধ হবো। বিশ্বজনীন আদর্শকে অনুধাবণ করে সাহিত্যচর্চা উদ্বুদ্ধ হওয়ার মাধ্যমেই কবি ফররুখের সত্যিকার মূল্যায়ন সম্ভব।

বিশিষ্ট শিশুসংগঠক আহমদ মাহবুব ফেরদৌসের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন পরিষদের সদস্য সচিব, সিলেট প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি মুকতাবিস-উন-নূর, শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন যুগ্ম আহবায়ক অধ্যক্ষ কবি কালাম আজাদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট মুজিবুর রহমান চৌধুরী, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) জুবায়ের সিদ্দিকী, প্রবীণ সাংবাদিক আফতাব চৌধুরী, লে. কর্নেল (অব.) সৈয়দ আলী আহমদ, মৌলভীবাজার সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ লে. কর্নেল (অব.) প্রফেসর ছয়ফুল কবীর চৌধুরী, সিলেটের ডাকের নির্বাহী সম্পাদক গবেষক আবদুল হামিদ মানিক, ডা. মো. মাশুকুর রহমান।

অনুষ্ঠানে কবি ফররুখ আহমদ জন্মশতবর্ষ উদযাপন উপলক্ষে চারটি প্রস্তাবনা পেশ করা হয়। প্রস্তাবনা উপস্থাপন করেন কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদের সহ-সভাপতি সেলিম আউয়াল। অনুষ্ঠানে কবি ফররুখ আহমদের জীবন ও সাহিত্য নিয়ে নির্মিত ডকুমেন্টারি প্রকাশ করা হয় এবং তাঁকে মূল্যায়ন করে রচিত গ্রন্থের প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়। প্রদর্শনী অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন ফররুখপুত্র আহমদ আখতার।

সিলেটে কবি ফররুখ আহমদের সাহিত্য গবেষণায় অবদান রাখার জন্য উদযাপন পরিষদের পক্ষ থেকে সিলেটের চারজন কবিকে ‘কবি ফররুখ জন্মশতবর্ষ সাহিত্য পদক’ প্রদান করা হয়। পদকপ্রাপ্তরা হলেন- প্রফেসর কবি আফজাল চৌধুরী (মরণোত্তর), কবি রাগিব হোসেন চৌধুরী, কবি মুকুল চৌধুরী এবং কবি মুসা আল হাফিজ।
পদকপ্রাপ্তদের মধ্যে অনুভূতি ব্যক্ত করেন কবি মুকুল চৌধুরী ও কবি মুসা আল হাফিজ। অনুষ্ঠানের অতিথিবৃন্দ পদকপ্রাপ্তদের হাতে প্রশংসাপত্র ও সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেন। পরে ফররুখ জন্মশতবর্ষ উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত বিভিন্ন প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ করা হয়। এর মধ্যে রচনা প্রতিযোগিতায় ‘ক’ গ্রুপে প্রথম তাসনিম ইফরিত খান, দ্বিতীয় নাঈম আহমদ সুহাদ, তৃতীয় জহিরুল ইসলাম অভি, ‘খ’ গ্রুপে প্রথম মো. আব্দুল বাছিত, দ্বিতীয় জান্নাতুল মাওয়া আঞ্জুলী, তৃতীয় সানজানা হাকিম স্মৃতি, কবিতা আবৃত্তিতে ‘ক’ গ্রুপে প্রথম মাহফুজা মাহজাবিন, দ্বিতীয় নামিরা সাদেক পিয়া, তৃতীয় যৌথভাবে মালিহা মারিয়ম ও লামিসা জান্নাত চৌধুরী, ‘খ’ গ্রুপে প্রথম সামিরা সাদেক লিয়া, দ্বিতীয় রাইসা জান্নাত চৌধুরী, তৃতীয় মাতৃবা রহমান, কুইজ প্রতিযোগিতায় ‘ক’ গ্রুপে প্রথম আনাস বিন এনাম, দ্বিতীয় ইব্রাহিম মো. তাওসিফ, তৃতীয় শাহ মো. নাজমুস সাকিব, ‘খ’ গ্রুপে প্রথম মাইশা হোসেন চৌধুরী, দ্বিতীয় সুমাইয়া ফেরদৌস হিযবা, তৃতীয় জায়ারা আফরিন চৌধুরী।

অনুষ্ঠানের অতিথিবৃন্দ পুরস্কারপ্রাপ্তদের হাতে সম্মাননা ক্রেস্ট, সার্টিফিকেট ও পুরস্কার তুলে দেন। অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন সুলায়মান আল মাহমুদ, হামদ পরিবেশন করেন হিফজুর রহমান, তাসফিয়া জাহান তাহিয়া, কবি ফররুখের কবিতা আবৃত্তি করেন হাদিউল নাহিয়ান চৌধুরী। অনুষ্ঠানের শেষে একটি মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে কবি ফররুখ আহমদের রচিত হামদ, নাত এবং জাগরণমূলক সংগীত পরিবেশন করেন বাংলাদেশ সঙ্গীতকেন্দ্র, সিলেট, আলফালাহ সাংস্কৃতিক সংসদ ও দিশারী শিল্পীগোষ্ঠীর শিল্পীবৃন্দ।  অনুষ্ঠানে সিলেটের বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

এসএসডিসি/ কেএ




Share Button

আর্কাইভ

July 2018
M T W T F S S
« Jun    
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
3031  

Prayer Time Table

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ভোর ৪:০০
  • দুপুর ১২:০৮
  • বিকাল ৪:৪৩
  • সন্ধ্যা ৬:৫১
  • রাত ৮:১৪
  • ভোর ৫:২২


Developed By Mediait