Header Border

সিলেট, বৃহস্পতিবার, ২৬শে নভেম্বর, ২০২০ ইং | ১১ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ (হেমন্তকাল) ২৩°সে

সোনার পাখি ও ভিনগ্রহের বাসিন্দারা: শিশুতোষ গল্পের নতুনধারা ।। মোয়াজ্জিম আল হাসান

কামরুল আলম বর্তমান সময়ের বুদ্ধিদীপ্ত একজন সমাজ সচেতন শিশুসাহিত্যিক। ছড়াকার হিসেবেই তাঁর মূল পরিচিতি, ছন্দ আর অন্তমিলের কারসাজি দিয়ে তিনি ইতোমধ্যে স্বকীয়তার স্বাক্ষর তৈরি করতে পেরেছেন। জাতীয় এবং স্থানীয় পত্রপত্রিকার শিশুসাহিত্যের পাতায় তাঁর নিয়মিতি উপস্থিতি কৈশোর থেকেই। এখনও লিখে যাচ্ছেন নিয়মিত, নিজে সম্পাদনাও করছেন বিভিন্ন সাহিত্য সাময়িকী।

 

 

২০০৯ সালে প্রকাশিত হয় কামরুল আলমের প্রথম একক ছড়াগ্রন্থ ‘কিচিরমিচির’। এরপর দীর্ঘবিরতি দিয়ে ২০১৪ সালে বইটির দ্বিতীয় সংস্করণ বের হয়। ছড়া ও কিশোর কবিতার অনেকগুলো পা-ুলিপি জমে গেলেও সম্প্রতি প্রকাশিত হয়েছে তাঁর প্রথম গল্পগ্রন্থ ‘সোনার পাখি ও ভিনগ্রহের বাসিন্দারা’।

 

 

গত একুশে বইমেলায় সিলেটের শব্দতারা প্রকাশন বাজারে এনেছে বইটি । নজরকাড়া ম্যাট লেমিনেটেড প্রচ্ছদটি বিখ্যাত চিত্রশিল্পী মামুন হোসাইনের স্কেচ অবলম্বনে তৈরি করেছেন তরুণ গ্রাফিক্স ডিজাইনার লুৎফুর রহমান তোফায়েল। মজবুত বোর্ড বাঁধাইকৃত ৩ ফর্মার এ বইটিতে মোট গল্পের সংখ্যা ৫টি। প্রথম গল্পের নামানুসারে গ্রন্থটির নামকরণ করা হয়েছে। বইয়ের বা প্রথম গল্পের শিরোনাম দেখেই যে কেউ ভাবতে পারেন রূপকথার গল্প এবং সায়েন্স ফিকশনের সমন্বয় ঘটেছে এখানে। আসলেই তাই। সোনার পাখি ও ভিনগ্রহের বাসিন্দারা গল্পটি শিশুসাহিত্যে নতুনধারা হিসেবে সংযোজিত হয়েছে বলা যেতে পারে।

 

 

ঝড়ের সময় বৃষ্টি থেকে বাঁচতে একটি পাখি এসে ধরা পড়ে স্কুল পড়ুয়া সবুজের হাতে। পরবর্তীতে পাখিটিকে আটকে রাখে সবুজ। ঘটতে থাকে নতুন নতুন ঘটনা। সবুজের সম্মুখে হঠাৎ এসে দাঁড়ায় আরেক সবুজ। তারপর দ্বিতীয় সবুজ প্রথম সবুজের ভিতরে প্রবেশ করে। দেহ থাকে একজনের, মন নিয়ন্ত্রিত হয় আরেকজনের দ্বারা। এভাবেই সোনার পাখি ও ‘ভিনগ্রহের বাসিন্দারা’ গল্পের কাহিনী শুরু। গল্পটিতে সবুজের পরিবারের একটি চিত্র অঙ্কিত হয়েছে। ভিনগ্রহের বাসিন্দাদের সঙ্গে ভিনগ্রহে গিয়ে নতুন মিশন শুরু করে সবুজ। তার নতুন মিশনটাও বেশ মজার। পৃথিবীর মানুষের ধনী-গরিব বৈষম্য দূর করার কাজ নিয়েই ভিনগ্রহের বাসিন্দারা সবুজকে সঙ্গে নিয়ে পৃথিবীতে ফিরে আসে। কিন্তু ভাগ্য তাদের অনুকূলে না থাকায় শেষ পর্যন্তু সবুজ পৃথিবীর বুকেই লাল রক্ত ঝরিয়ে বিদায় নিতে হয় সবুজকে।

 

 

ছোটদের নিয়ে অনেক ভাবেন কামরুল আলম। তাই তো তাঁর অন্য ৪টি গল্পতেও পাওয়া যায় ভিন্নধর্মী ভাবধারা। ‘আনন্দের এপিঠ-ওপিঠ’ গল্পটিতে তিনি চিত্রিত করেছেন ঈদের আনন্দ কীভাবে ধনী ও গরিবের ঘরে পৃথকভাবে আসে। বাদ দেননি মধ্যবিত্তদেরও। ছোটদের মনে আনন্দ দেওয়ার মতো এ গল্পটি বড়োদের হৃদয়কে নাড়িয়ে দেবে নিঃসন্দেহে।

 

 

‘স্বপ্নের নতুন পৃথিবী’ একটি সায়েন্স ফিকশন। পৃথিবী ধ্বংস বা বিলুপ্ত হবার অনেক পরে মঙ্গল গ্রহের এক বাসিন্দা তার রোবটের গবেষণা থেকে জানতে পারে পৃথিবীতেও আগে মানুষ বসবাস করতো। তাই সে তার ক্লোন মানব পাঠিয়ে পৃথিবীর খোঁজখবর নিতে থাকে। একপর্যায়ে পৃথিবীর প্রতি আকৃষ্ট হয়ে গেলে নতুন পৃথিবী গড়ার স্বপ্ন দেখে সেই তরুণ। বর্তমানে যখন আমরা মঙ্গলগ্রহে প্রাণের অস্তিত্ব খুঁজছি এ গল্পের চিত্রটি যেন ঠিক তারই বিপরীত। হয়তো কোন একদিন এমনটা ঘটতেও পারে।

 

 

আবীরের গল্পশোনা শিশুতোষ গল্পের একটি চমৎকার উদাহরণ। ‘৩ বছরের বাচ্চাশিশু আবীর তার অধ্যাপক পিতার কাছে জানতে চায়, নবী ইদ্রিস (আ.) কি সত্যি সত্যি তাঁর একটা জুতো বেহেশতে রেখে এসেছিলেন?’ অবাক করা এরকম প্রশ্নের পিঠে প্রশ্নই করতে থাকে ছোট্ট শিশুটি। উত্তর দিতে দিতে ঘেমে যেতে হয় বাবাকে। ১২ ফন্টে লেখা ৮ পৃষ্ঠার এ দীর্ঘ গল্পটি এক নিঃশ্বাসে পড়ার মতোই আকর্ষণীয়। ‘ছোটমামার টাইমমেশিন’ গ্রন্থটির আরেকটি সায়েন্স ফিকশন হলেও এখানে সায়েন্সের ব্যবহারের চেয়ে রসিকতাটাই প্রাধান্য পাওয়ায় এ গল্পটিতেও পাঠক খুঁজে পাবেন ভিন্নরকম স্বাদ।

 

 

কামরুল আলম’র গর্ব করার মতো একটি পরিচয়, তিনি একজন খ্যাতিমান শিক্ষাবিদ ও সুসাহিত্যিক মরহুম কবি করামত আলীর সন্তান। পূর্বেই বর্ণনা করা হয়েছে বইয়ের ব্যাপারে। নজরকাড়া এ বইটির গল্পগুলোর অলঙ্করণে রয়েছেন শিল্পী নিয়াজ চৌধুরী তুলি। ব্যক্তিগতভাবে লেখক আমার খুবই পরিচিত এবং প্রেরণার উৎসও। তিনি আমাকের আপন ছোটভাইয়ের চেয়ে অধিক ¯েœহ করেন। সেই সুবাদে তাঁর বইটিও পেয়ে যাই উপহার হিসেবে। এনেই ঝটপট পড়ে নেই একটানা ৫টি গল্প। পড়ে বেশ ভালো লাগলো, অনুপ্রাণিত হলাম। গল্প পড়ার একটা ভিন্নরকম অভিজ্ঞতা ছিল আমার, সেটাও কেটে গেল মুহূর্তেই। অখাদ্য কু-খাদ্যনির্ভর গল্পের রেশ কাটিয়ে আমিও পেয়ে গেলাম নতুন স্বাদ, নতুন উদ্দীপনা। সার্থক সাহিত্য তো সেটাই, যেটা একবার পড়লে বারবার পড়তে ইচ্ছে করে। যার রেশ থেকে যায় যুগ যুগ ধরে, জীবনে চলার পথে সাহস এবং স্বপ্ন যোগায়। এ ধরনের সাহিত্যের কাতারেই পড়ে যায় শ্রদ্ধেয় কামরুল আলমের গল্পগ্রন্থ ‘সোনার পাখি ও ভিনগ্রহের বাসিন্দারা’।

 

sonar pakhi

বইটির অনলাইন পরিবেশক রকমারি ডটকম। সিলেটের অভিজাত লাইব্রেরি ও বুকস্টলে পাওয়া যাচ্ছে। এছাড়া দেশের যে কোন প্রান্ত থেকে বইটি সংগ্রহ করার জন্য যোগাযোগ করতে পারেন ০১৭১২৭৮৬৭৭৫ এই নাম্বারে। ও হ্যাঁ, বইটির মূল্য রাখা হয়েছে মাত্র ১৩০ টাকা যা বর্তমান সময়ে সর্বসাধারণের হাতের নাগালেই।

 

 

সোনার সিলেট/ কেএ

আপনার মতামত লিখুন :

আরও পড়ুন

বগুড়ায় পাপড়ি বন্ধুমেলার শাখা গঠন
আল মাহমুদ : শিশু-কিশোরদের মনের মতো কবি || কামরুল আলম
তোরাব আল হাবীব এর কিশোর কবিতার বই-একটা আকাশ একটা ঘুড়ি || শাহাদত বখত শাহেদ
শিশুসাহিত্য পুরস্কারের জন্য পাণ্ডুলিপি আহবান করেছে ‘পাপড়ি’
জলভূতের কালোছায়া : ছোটদের সুখপাঠ্য গল্পের বই
এসো বানান শিখি-২ || কামরুল আলম

আরও খবর

Shares