সোনার সিলেট

নতুন ও হারানো সিমকার্ডে ট্যাক্স ২০০ টাকা

Published: 19 06 2019   3:56:52 PM   Wednesday   ||   Updated: 19 06 2019   3:56:52 PM   Wednesday
নতুন ও হারানো সিমকার্ডে ট্যাক্স ২০০ টাকা

সোনার সিলেট ডেস্ক ।।  মোবাইল ফোনের সিম কার্ডের ট্যাক্স ১০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ২০০ টাকা করার প্রস্তাব করা হয়েছে ২০১৯-২০২০ অর্থ বছরের বাজেটে। আগে সিম কার্ডে ট্যাক্সের পরিমান ছিল ১০০ টাকা। এতদিন গ্রাহক বাড়ানোর স্বার্থে অপারেটরাই এই টাকা সরকারকে পরিশোধ করত।

কিন্তু এখন থেকে সিম কার্ডের ট্যাক্সের টাকা সিম কেনার সময় গ্রাহককেই দিতে হবে। মোবাইল অপারেটর কোম্পানির নেতারা বলছেন, এমনিতেই অপারেটরগুলো ক্ষতির মুখে আছে। এতদিন গ্রাহকদের হয়ে সিম ট্যাক্সের ১০০ টাকা সরকারকে দিয়ে আসলেও ভবিষ্যতে আর দেয়া সম্ভব হবে না।

অ্যাসোসিয়েশন অব মোবাইল টেলিকমিউনিকেশন অপারেটরস অব বাংলাদেশ (অ্যামটব) -এর অ্যাকটিং প্রেসিডেন্ট এবং রবি আজিয়াটা লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও প্রধান নির্বাহী (সিইও) মাহতাব উদ্দিন আহমেদ গণমাধ্যমকে বলেছেন, ‘সিম কার্ডের উপর আরোপিত শুল্ক ১০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ২০০ টাকা করা।

আগে সিম কার্ডে শুল্ক ছিল ১০০ টাকা। যেটা এতদিন আমরা অপারেটরা দিয়ে আসছিলাম। কিন্তু আমরা আর এই সিম ট্যাক্সের ২০০ টাকা দিতে পারব না। এটা গ্রাহককেই দিতে হবে।’ মাহতাব উদ্দিন আহমেদ জানান, এখন থেকে গ্রাহকদের সিম কার্ড পরিবর্তন, নতুন করে সিম কার্ড উত্তোলন করতেও ২০০ টাকা ট্যাক্স দিতে হবে।

অ্যামটব মহাসচিব এস এম ফরহাদ বলেছেন, ‘প্রস্তাবিত নতুন শুল্ক নীতিমালা বর্তমান ও নতুন গ্রাহকদের ওপর নতুন করে অতিরিক্ত খরচের বোঝা বাড়াবে। নতুন সিম কার্ড ও প্রতিস্থাপনের উপর আরোপিত শুল্ক ১০০ টাকা থেকে ২০০ টাকা বৃদ্ধি করায় নতুন গ্রাহকদের খরচের বোঝা দ্বিগুণ হারে বৃদ্ধি করবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘প্রস্তাবিত বাজেটে সিম কার্ডের উপর আরোপিত শুল্ক দ্বিগুণ করা ও অতিরিক্ত সম্পূরক শুল্ক আরোপ টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের গতিকে বাধাগ্রস্ত করবে।’ দেশে এখন মোবাইল ফোনের সচল সিম রয়েছে প্রায় ১৬ কোটি। অর্থাৎ ১৬ কোটি মোবাইলের সিম ব্যবহারকারীর জন্য শুল্কবৃদ্ধিজনিত এ ব্যয় বাড়বে। এর মধ্যে ইন্টারনেট ব্যবহার হচ্ছে প্রায় ৯ কোটি সিমে।

নতুন বাজেট ঘোষণার আগে মোবাইল ফোনে কথার বলার ওপর ১৫ শতাংশ ভ্যাট, ৫ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক ও ১ শতাংশ সারচার্জসহ মোট ২২ শতাংশ কর ছিল। অর্থাৎ, কেউ মোবাইল ফোনে সিম বা রিম ব্যবহার করে ১০০ টাকার কথা বললে তাকে ২২ টাকা কর দিতে হতো সরকারকে। নতুন করে ৫ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক আরোপ করায় এখন ১০০ টাকায় কর দিতে হবে মোট ২৭ টাকা।

এর অর্থ হলো একশ টাকার কথা বলা বা বার্তা দেয়ার ব্যয় হলো ১২৭ টাকা যা আগে ছিল ১২২ টাকা এবং কোম্পানিগুলো এ অর্থ নিজেরা দেবে না – বরং তারা এ অর্থ সরকারকে দেবে গ্রাহকের কাছ থেকে নিয়েই।

এসএসডিসি/আরডিআর

সোনার সিলেট

তিন সুন্দরীর হলো মেলা বিশ্বকাপে

Published:   2:53:00 PM   Wednesday   ||   Updated: 19 06 2019   2:53:00 PM   Wednesday
তিন সুন্দরীর হলো মেলা বিশ্বকাপে

সোনার সিলেট ডেস্ক  ।। চলছে বিশ্বকাপ ক্রিকেট। ওয়েস্ট ইন্ডিজের সঙ্গে দুর্দান্ত এক জয়ে ফুরফুরে মেজাজে রয়েছে বাংলাদেশ। আর বিশ্বকাপটাও বেশ রঙিন হয়ে উঠছে, জমে উঠেছে টাইগার সমর্থকদের জন্য। মাঠে থেকে বিশ্বকাপ বেশ উপভোগ করছেন বাংলাদেশের জনপ্রিয় মডেল ও উপস্থাপিকা পিয়া জান্নাতুলও।

তিনি বাংলাদেশ টেলিভিশন ও গাজী টিভির উপস্থাপিকা হিসেবে আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপে অংশ নিচ্ছেন।

সম্প্রতি তাকে ভারত ও পাকিস্তান থেকে উপস্থাপনা করতে যাওয়া আরও দুই সুন্দরীর সঙ্গে দেখা গেল। গতকাল মঙ্গলবার, ১৮ জুন ছিলো বিশ্বকাপের ২৪তম ম্যাচ। সেখানে অংশ নেয় ইংল্যান্ড ও আফগানিস্তান। সেই ম্যাচ শেষে পিয়ার সঙ্গে এক ফ্রেমে বন্দী হন ভারতের রিদিমা পাঠক ও পাকিস্তানের জয়নাব আব্বাস। সেই ছবিটি পিয়া নিজেই তার ফেসবুকে শেয়ার করেছেন।

তিনি বিশ্বকাপ ২০১৯ হ্যাশট্যাগ দিয়ে ক্যাপশনে লিখেছেন, ‘তিন জাতির গর্বের প্রতিনিধিত্ব। বাংলাদেশ, ইন্ডিয়া ও পাকিস্তান।’

প্রসঙ্গত, ২০০৭ সালের মিস বাংলাদেশ হয়ে আলোচনায় আসেন পিয়া জান্নাতুল। আন্তর্জাতিকভাবে খ্যাত এই মডেল ক্রিকেট নিয়ে বেশ আগ্রহী। তাকে দেখা গেছে ক্রিকেট বিষয়ক নানা অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করতে। বিপিএলের উপস্থাপিকা হয়ে তিনি জনপ্রিয়তা পেয়েছেন।

এবার তিনি বাংলাদেশ টেলিভিশন ও জিটিভির হয়ে সরাসরি অংশ নিচ্ছেন বিশ্বকাপের মাঠে।
বিভিন্ন দেশের ক্রিকেটপ্রেমীদের সঙ্গে তার খুনসুটি, তারকা ক্রিকেটারদের সঙ্গে কথোপকথন, সাবেক খেলোয়াড়দের সঙ্গে ম্যাচ বিশ্লেষণ প্রশংসা পাচ্ছে।

পিয়ার মতোই নিজ নিজ দেশে ক্রিকেট বিষয়ক উপস্থাপনার জন্য তুমুল জনপ্রিয় রিদিমা ও জয়নাব। তিনজনই বিশ্বকাপে উত্তাপ ছড়াচ্ছেন তাদের সৌন্দর্য দিয়েও। প্রশংসিত হচ্ছেন সাবলীল উপস্থাপনায়।

ভারতের হয়ে বিশ্বকাপে আলো ছড়াচ্ছেন অভিনেত্রী থেকে ক্রিকেট অনুষ্ঠান উপস্থাপিকা হয়ে ওঠা রিদিমা পাঠক। কয়েক দিন আগেও দর্শকদের কাছে তিনি কেবল একজন অভিনেত্রীই ছিলেন। চলতি বিশ্বকাপ এই লাস্যময়ী মডেল ও অভিনেত্রীকে উপস্থাপিকা হিসেবে পরিচিত করে তুললো।

অন্যদিকে এবারের আসরে ডাকসাইটে সুন্দরী ধারাভাষ্যকার পাকিস্তানের ক্রীড়া সাংবাদিক জয়নাব আব্বাস। এই তরুণীকে নিয়ে তোলপাড় সোশ্যাল মিডিয়া। তার সৌন্দর্য, হাসি, কথা বলার ভঙ্গি খুব সহজেই দাগ কাটে সবার মনে।

ছোট থেকেই পরিবারের সঙ্গে ক্রিকেট দেখতে দেখতে দক্ষতা জন্মায় তার। কোনো রকম পূর্ব অভিজ্ঞতা ছাড়াই ক্রীড়া সাংবাদিক হওয়ার জন্য আবেদন করেন। ক্রিকেটে দক্ষতার কারণেই মেলে সুযোগ। মডেলিংও করেছেন কিছু বিজ্ঞাপনী ছবিতে। মণীশ মালহোত্রর ফ্যাশন শো’য়ে র্যাম্পে হেঁটেছেন তিনি। জয়নাব পড়াশোনা করেছেন ম্যানেজমেন্ট নিয়ে ওয়ারউইক বিশ্ববিদ্যালয় থেকে।

এসএসডিসি/আরডিআর

সোনার সিলেট

মিস ইন্ডিয়াকে যৌন হেনস্তা করায় ৭ জন গ্রেফতার

Published:   2:12:33 PM   Wednesday   ||   Updated: 19 06 2019   2:13:05 PM   Wednesday
মিস ইন্ডিয়াকে যৌন হেনস্তা করায় ৭ জন গ্রেফতার

সোনার সিলেট ডেস্ক ।। প্রাক্তন মিস ইন্ডিয়া ঊষসী সেনগুপ্ত কলকাতার রাস্তায় যৌন হেনস্থা হয়েছেন। ভয়ংকর এই পরিস্থিতির মধ্যে পড়ে আতঙ্কের মধ্যে সময় কাটছে তার। মঙ্গলবার নিজের ফেসবুক পোস্টে পুরো ঘটনার বিবরণ দিয়েছেন ঊষসী।

তিনি লিখেছেন, ‘বাইপাসের ধারের একটি পাঁচতারা হোটেল থেকে আমি উবার বুক করেছিলাম। আমার গাড়ি যখন এলগিন রোডের কাছাকাছি, তখন গাড়িতে একটি বাইক এসে ধাক্কা মারে। আমার গাড়িতে যারা ধাক্কা মেরেছে তাদের কারও মাথাতেই হেলমেট ছিল না।’

ঊষসী সেনগুপ্ত ফেসবুকে পুলিশ নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ তুলেন। পরে সাতজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলে জানা গেছে।

এসএসডিসি/আরডিআর

সোনার সিলেট

বাংলায় এসএমএস পাঠালে খরচ অর্ধেক!

Published:   1:57:49 PM   Wednesday   ||   Updated: 19 06 2019   1:57:49 PM   Wednesday
বাংলায় এসএমএস পাঠালে খরচ অর্ধেক!

সোনার সিলেট ডেস্ক ।।  বাংলায় এসএমএস পাঠানোর খরচ কমিয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)। বাংলায় প্রতি এসএমএসে খরচ হবে মাত্র ২৫ পয়সা। কমিশনের সিস্টেম অ্যান্ড সার্ভিস বিভাগের উপ-পরিচালক সামিরা তাবাসসুম স্বাক্ষরিত গত ১৩ জুনের নির্দেশনায় বলা হয়, ব্যক্তি থেকে ব্যক্তি পর্যায়ে প্রেরিত বাংলায় এসএমএসের ট্যারিফ সর্বোচ্চ শূন্য দশমিক ২৫ টাকা (ভ্যাট ও ট্যারিফ ব্যতীত) নির্ধারণ করা হলো। যা আগামী ২০ জুন থেকে কার্যকর করার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হলো।

টেলিটকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং রবি, বাংলালিংক ও গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তাকে নির্দেশনা পাঠানো হয়েছে। বর্তমানে প্রতি এসএমএসে খরচ ৫০ পয়সা (ভ্যাট ও ট্যারিফ ব্যতীত)। ২০১০ সালের ১৫ আগস্ট থেকে এ ট্যারিফ কার্যকর আছে।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বাংলায় এসএমএসের খরচ কমানো নিয়ে মঙ্গলবার (১৮ জুন) রাতে তার ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে লিখেছেন, বাংলায় একটি এসএমএস পাঠাতে ইংরেজির দ্বিগুণ খরচ হয়, কারণ বাংলায় অক্ষর বেশি হয়ে যায়। সেই অসুবিধার যুগ অতিক্রান্ত। এখন রাষ্ট্রভাষায় এসএমএস পাঠান ইংরেজির অর্ধেক দামে।

এসএসডিসি/আরডিআর

সোনার সিলেট

আপনারা সাড়ে ১০ বছর ক্ষমতায়, এখনো ছাত্রদল বালিশ কিনতে পারছে?

Published:   1:41:09 PM   Wednesday   ||   Updated: 19 06 2019   1:41:09 PM   Wednesday
আপনারা সাড়ে ১০ বছর ক্ষমতায়, এখনো ছাত্রদল বালিশ কিনতে পারছে?

সোনার সিলেট ডেস্ক ।।  মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আপনি বলেছেন, বালিশ কেনার দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তা ছাত্রদল করতেন। আমাদের প্রশ্ন, আপনি কি এই তথ্য বালিশকাহিনির পরে জানলেন? নাকি আগে থেকেই আপনার কাছে তথ্য ছিল? একজন অভিযুক্ত আগে কোন দল বা সংগঠন করতো, কোন রাজনীতিতে বিশ্বাসী ছিল– এটা বলে আপনি কী প্রমাণ করতে চাইলেন?

সাড়ে দশ বছর ধরে আপনি ও আপনার দল ক্ষমতায়। এখনো ছাত্রদলের লোকেরা বালিশ কিনতে পারছে, আর কী কী কিনছে তা তো এখনো আমরা জানি না। ধরা না খেলে তো আমাদের পক্ষে জানা সম্ভব না যে, প্রশাসনে বা সরকারের উচ্চপদে ছাত্রদল বা বিএনপির আর কে কে আছে? স্বাভাবিক অবস্থায় আমরা তো জানি যে, সরকারের উচ্চপদের বা গুরুত্বপূর্ণরা সবাই আওয়ামী লীগের আদর্শে বিশ্বাসী বা অন্তত চরমভাবে আস্থাশীল।

অবশ্য সরকারে, দলে বা ছাত্রলীগে অনুপ্রবেশের অভিযোগ নতুন নয়। বিভিন্ন ঘটনায় বা অন্যায়ের প্রেক্ষাপটে হাইব্রিড, ‘কাউয়া’ এসব মনোহর শব্দ বা শব্দবন্ধ আমরা উপহার পেয়েছি। দেখে শুনে মনে হয় কেউ কোনো অপরাধ করতে পারে কিনা তার কষ্টিপাথর হলো সে এখন কোন দল করে বা একসময় বিএনপি বা ছাত্রদল করেছে কিনা।

প্রিয় প্রধানমন্ত্রী, আপনাকে স্মরণ করিয়ে দিতে চাই, আপনি এখনও সংবিধানের ৭০ অনুচ্ছেদের সমর্থক। কারণ, আপনি জানেন, আপনার দলের সদস্যরাও দল বদলে ফেলতে পারে সদস্যপদ হারানোর হুমকি না থাকলে। একাধিকবার আপনি বলেছেনও আপনার দলের লোকদেরও কেনা যায়! সংসদে দাঁড়িয়ে ব্যাখ্যা দিতে হয়েছে পরিবার বলতে আপনি বোঝেন– আপনি ও আপনার ছোট বোনের ছেলে-মেয়েদের পরিবার,ব্যাস।

আপনি যে বারবার বলেন, যে সন্ত্রাসী বা দুর্নীতিবাজ তা সে যে দলেরই হোক না কেন শাস্তি তাকে পেতে হবে। এটা দিয়ে আপনি আসলে কী বোঝাতে চান? অবস্থা দেখে তো মনে হয় আপনি বিশ্বাসই করেন না যে, আপনার দলে এরকম কেউ থাকেত পারেন। দেখুন বালিশ প্রকৌশলীর কথা বলতে গিয়ে আপনি বলছেন, ‘‘..এমন এমন লোক রয়ে গেছেন, জন্ম থেকেই তাদের চরিত্র দুর্নীতির।” হতে পারে মাননীয় প্র্রধানমন্ত্রী। কিন্তু আপনি বিশ্বাস করেন আপনার দলে, সরকারে, এমনকি খুব কাছেও খারাপ লোক আছে বা থাকতে পারে। তারা ধরাও কিন্তু পড়বে। তাদের সবাইকে আপনি বিএনপি বা ছাত্রদলের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়তো বলতে পারবেন না। তাই তাদের সাবধান করুন। নিজেও সতর্ক হন।

এসএসডিসি/আরডিআর

সোনার সিলেট

সিলেট-জগন্নাথপুর সড়কে বন্ধ হয়ে যেতে পারে গাড়ি চলাচল

Published:   1:04:30 PM   Wednesday   ||   Updated: 19 06 2019   1:04:30 PM   Wednesday
সিলেট-জগন্নাথপুর সড়কে বন্ধ হয়ে যেতে পারে গাড়ি চলাচল

সোনার সিলেট ডেস্ক ।। সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর থেকে সিলেট সড়কের মাত্র ১৩ কিলোমিটার সড়কের বেহাল দশার কারণে জন ভোগান্তির শেষ নেই। দিনেদিনে ভাঙ্গাচোরা সড়কের অবস্থা আরো বেহাল হচ্ছে। বর্তমানে এ সড়কে যানবাহন চলাচলের প্রায় অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। যে কোন সময় এ সড়কে গাড়ি চলাচল বন্ধ হয়ে যেতে পারে। যে কারণে দ্রুত সড়কের মেরামত কাজের দাবিতে ফুসে উঠছেন জনতা। তা না হলে আন্দোলনে নামতে পারেন ভূক্তভোগী সাধারণ মানুষ।

জানা গেছে, জগন্নাথপুর-সিলেট সড়কের জগন্নাথপুর থেকে কেউনবাড়ি বাজার পর্যন্ত মাত্র ১৩ কিলোমিটার সড়কের নাজুক দশায় দীর্ঘদিন ধরে অবর্ণনীয় ভোগান্তির শিকার হয়ে আসছেন সাধারণ মানুষ। এ নিয়ে বারবার গণমাধ্যমে শিরোনাম হলেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের টনক নড়ছে না। এতে ভূক্তভোগী মানুষের মধ্যে ক্ষোভ ও উত্তেজনা দিনদিন বেড়ে চলেছে। যে কোন সময় কঠোর আন্দোলন নিয়ে মাঠে নামতে পারেন সাধারণ মানুষ।

১৮ জুন মঙ্গলবার সরজমিনে দেখা যায়, জগন্নাথপুর থেকে কেউনবাড়ি বাজার পর্যন্ত ১৩ কিলোমিটার সড়কের মধ্যে অধিকাংশ সড়ক যানবাহন চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। সড়কের পিচ ঢালাই উঠে গিয়ে বড়-বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এসব গর্তে বৃষ্টির পানি জমে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। এর মধ্যে সড়কের অনেক স্থানে গাড়ি চলাচল তো দুরের কথা, পায়ে হেঁটে চলাচল করাও অসম্ভব হয়ে পড়েছে। কোথাও কোথাও পুরো সড়ক ভেঙে গেছে। সড়কের এমন বেহাল দশা, নিজ চোখে না দেখলে কেউ বিশ্বস করতে পারবেন না। এরপরও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে জীবন-জীবিকার তাগিদে যানবাহন চলাচল করছে। সড়কটির বেহাল দশার কারণে প্রায়ই ঘটছে সড়ক দুর্ঘটনা। এমন অভিযোগ এ সড়কে চলাচলকারী যানবাহনের চালকদের।

এ ব্যাপারে জগন্নাথপুর মিনিবাস শ্রমিক সমিতির সাবেক সভাপতি রাব্বানী মিয়া বলেন, এ সড়কটির বেহাল দশার কারণে সব থেকে ক্ষতির শিকার হচ্ছি আমরা। ভাঙ্গাচোরা সড়কের কারণে প্রতিনিয়ত গাড়িতে মেরামত কাজ করাতে হচ্ছে। সড়কের গর্তে পড়ে গাড়ির যন্ত্রপাতি নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। অনেক সময় গাড়ি বিকল হয়ে যায়। আবার ঘনঘন দুর্ঘটনাও ঘটছে। তিনি আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, সড়কে দ্রুত কাজ না হলে যে কোন সময় গাড়ি চলাচল বন্ধ হয়ে যেতে পারে। আর গাড়ি চলাচল বন্ধ হলে জগন্নাথপুর-সিলেট সড়কে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়বে। এতে মানুষ আরো বেশি কষ্ট পাবেন।

উপজেলার মিরপুর ইউপি চেয়ারম্যান (ভারপ্রাপ্ত) জমির উদ্দিন বলেন, সড়কটির বেহাল দশার কারণে মানুষের কষ্টের শেষ নেই। অচিরেই সড়কে কাজ না হলে আন্দোলনে নামতে পারেন সাধারণ মানুষ। জগন্নাথপুর পৌরসভার প্যানেল মেয়র শফিকুল হক বলেন, এ সড়কের করুণ অবস্থার কারণে মানুষ চলাচল করতে পারছেন না। এতে মানুষের মধ্যে ক্ষোভ ও উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছে। তাই জনস্বার্থে দ্রুত সড়কের কাজ করতে তিনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি দাবি জানান। জগন্নাথপুর উপজেলা আ.লীগের সহ-সভাপতি আবদুল কাইয়ূম মশাহিদ বলেন, জন ভোগান্তি লাঘবে এ সড়কে দ্রত কাজ করাতে হবে। শুধু তাই নয়, টেকসই দীর্ঘ মেয়াদী কাজ করাতে হবে। তা না হলে কিছুদিন পর আবারো ভেঙে যাবে।

এ ব্যাপারে জগন্নাথপুর উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) গোলাম সারোয়ার বলেন, এ সড়কটির বেহাল অবস্থা আমাদের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ পরিদর্শন করেছেন। তাই জগন্নাথপুর থেকে কেউনবাড়ি বাজার পর্যন্ত ১৩ কিলোমিটার সড়কের মেরামত কাজের জন্য ২০ কোটি টাকার কাজ অনুমোদন হয়েছে। তবে এখনো বরাদ্দ আসেনি। বরাদ্দ আসলেই সরকারি নীতিমালা অনুযায়ী কাজ শুরু হবে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আগামী ২/৩ মাসের মধ্যে কাজ শুরু হতে পারে।

এসএসডিসি/আরডিআর

সোনার সিলেট

সিলেটে সড়ক যাত্রায় নারীদের জন্য আলাদা বাস, ড্রাইভার-হেলপারও নারী

Published:   1:02:54 PM   Wednesday   ||   Updated: 19 06 2019   1:02:54 PM   Wednesday
সিলেটে সড়ক যাত্রায় নারীদের জন্য আলাদা বাস, ড্রাইভার-হেলপারও নারী

সোনার সিলেট ডেস্ক ।।  সিলেটে এই প্রথম চালু হচ্ছে নারীদের জন্য আলাদা বাস সার্ভিস। সুন্দর এ বাসের যাত্রী, চালক, হেলপার সবই থাকবেন নারী। ‘নগর এক্সপ্রেস’ নামে চারটি রোটে মোট ৪ টি বাস চলয়াচল করবে প্রতিদিন। সিলেট সিটি করপোরেশনের তত্ত্বাবধানে নারীদের জন্য বিশেষ এ বাস সার্ভিসের চালু করছে নিটল টাটা মটরস।

গাড়িতে নারীদের যৌন হয়রানী রোধ, কর্মক্ষেত্রে নারীদের সমতায়ন, চলাচলে নারীদের নিরাপদ যাত্রাসহ নানা বিষয় বিবেচনা করে প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনা দেশব্যাপী বিভিন্ন প্রকল্প গ্রহণ করেছেন। প্রধানমন্ত্রীর নানা প্রকল্পকে আরো একধাপ এগিয়ে নিতে ‘নগর এক্সপ্রেস, নারী বাস’ প্রকল্পটি চালু করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন কর্তৃপক্ষ।

নিটল টাটা সিলেট কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গেছে, সিলেট নগরীতে গণপরিবহণের চাহিদা মিটাতে মোট ৪টি সড়কে ভাগ করে ‘নগর এক্সপ্রেস’ নাম দিয়ে ৪০ টি বাস চালু করার উদ্যোগ নিয়েছে সিসিক। এই ৪০ টি বাসের ৩৬ টি সাধারণ হিসেবে চিহ্নিত করে নারী-পুরুষ সকলের জন্য উন্মুক্ত রাখা হলেও নারীদের জন্য আলাদা ভাবে ৪ টি বাসের ব্যবস্থা রাখা হবে। এ বাসগুলোর রঙ হবে গোলাপি, চালক, হেলপার থাকবেন নারী। ভাড়া সর্বনিম্ন ১০ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ২৫ টাকা নির্ধারিত হয়ে নির্ধারিত সময়ে বাসগুলো চলাচল করবে। প্রতিটি গাড়ির বডিতে লেখা থাকবে ‘শেখ হাসিনার দর্শন, সিলেটের উন্নয়ন।’

তারা জানান- ২৭টি আসনের বাসগুলোর একটি সড়ক ধরা হয়েছে টুকের বাজার থেকে বাগবাড়ী, মেডিকেল, বন্দর হয়ে সরাসরি হেতিমগঞ্জ পর্যন্ত। অন্য একটি সড়ক টুকেরবাজার থেকে আম্বরখানা, টিলাগড় হয়ে বটেশ্বর পর্যন্ত। আরো একটি সড়ক ক্বীন ব্রিজ থেকে বন্দর, কদমতলী হয়ে রশীদপুর পর্যন্ত। এছাড়াও এয়ারপোর্ট, জিন্দাবাজার, মোগলাবাজার হয়ে হাজিগঞ্জ পর্যন্ত মোট ৪ টি সড়কে ভাগ করে সাধারণ এ ৩৬ টি গাড়ি প্রতি ১০ থেকে ১২ মিনিট পরপর চলাচল করবে।

নিটল টাটা সিলেট অফিসের বাস শাখার সমন্বয়কারী শাহ মোহাম্মদ বাহাদুর আলম বলেন, নারীদের জন্য এসব বাসে চালক, হেলপার সবই থাকবেন নারী। নির্ধারিত বেতনের ভিত্তিতে তাদের নিয়োগ দেয়া হবে। ইতোমধ্যে চালক হেলপার নিয়োগ দেয়া হয়েছে। সিলেট সিটি করপোরেশন, মেট্রো আরটিসি, বিআরটিএ, ট্রাফিক বিভাগের সমন্বয়ে ইতোমধ্যে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। শীঘ্রই বাসগুলো চালু করা হবে বলে জানান তিনি।

এদিকে নারীদের জন্য আলাদা বাস চালু করার বিষয়টিকে নারীদের ক্ষমতায়ন, কর্মক্ষেত্রে ও স্কুল কলেজে নারীদের নিরাপদ যাত্রা নিশ্চিত করার মতো একটি প্রশংসনীয় উদ্যোগ বলে জানিয়েছেন নারী মুক্তি সংসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ও সিলেট জেলা শাখার সভাপতি ইন্দ্রাণী সেন।

তিনি বলেন, আমরা যারা প্রগতিশীল চিন্তার অধিকারী, নারীদের সমঅধিকার ও নারীদের নিরাপত্তার ব্যাপারে আন্দোলন করে আসছি তারা মনে করি সিলেটের মত একটি অঞ্চলে এ ধরণের একটি উদ্যোগ নিশ্চয় প্রশংসনীয়। কারণ বর্তমান সময়ে ধর্মান্ধ ও মৌলবাদী গোষ্ঠী নানাভাবে নারীদের যেরকম দমিয়ে রাখার অপচেষ্টায় লিপ্ত এরকম একটি সময়ে নারীদের সম্মানে আলাদা বাস সার্ভিস নারীদের ক্ষমতায়নে সহযোগী হবে। একই সাথে চলাচলে নারীদের নিরাপত্তার বিষয়টিও ভালো থাকবে বলে আমি মনে করছি।

তিনি আরও বলেন, বর্তমান সময়ে চলন্ত বাসে চালক-হেলপার কর্তৃক নারী ধর্ষণ, ধর্ষণের চেষ্টা এসব ঘটনা অহরহ। তাই গাড়ির চালক হেলপার মহিলা হওয়ায় একদিকে যেমন যাত্রী হিসেবে নারীরা নিরাপদ তেমনই নারীদের কর্মক্ষেত্র তৈরিতেও এসব বাস সহায়ক হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

এ উদ্যোগটি অত্যন্ত প্রশংসার দাবিদার উল্লেখ করে উইমেন্স চেম্বার সিলেটের সভাপতি স্বর্ণলতা রায় বলেন, নারীদের জন্য আলাদা বাস সার্ভিস চালু করার জন্য আমরা অনেক আগে মেয়র মহোদয়ের কাছে প্রস্তাবনা দিয়েছিলাম। কারণ আমরা যাই বলিনা কেন আমাদের দেশে নারীদের জন্য এখনো পুরোপুরি নিরাপত্তা নিশ্চিত হয়নি। তাছাড়া সিএনজি চালকদের দৌরাত্ম্য, নারীদের নিরাপত্তাহীনতাসহ নানা কারণে এসব বাসের দাবি ছিলো। তাই এসব বাস চালুর বিষয়টি সিলেটের নারীদের জন্য একটি শুভ সংবাদ হিসেবে আমি মনে করছি।

এ ব্যাপারে সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, বাসগুলো নিটল টাটার কাছ থেকে নির্ধারিত মূল্যের বিনিময়ে কিনে আনা হবে। সকল কিছুর তত্ত্বাবধান করবে সিলেট সিটি করপোরেশন। বাসগুলো মেরামতসহ রক্ষণাবেক্ষণের কাজ করবে নিটল টাটা কর্তৃপক্ষ। আপাতত বাসগুলো রাখার জন্য একটি জায়গা নির্ধারণ করে শীঘ্রই বাসগুলো সড়কে নামানো হবে। সিসি ক্যামেরা, ওয়াইফাইসহ সবরকম সুবিধা ভোগ করে নারীরা যাতে নিরাপদে চলাচল করতে পারে এজন্য নারীদের জন্য আলাদাভাবে বিশেষ বাসের ব্যবস্থা করা হয়েছে। আশা করি এ উদ্যোগের মধ্যদিয়ে নারীদের সড়ক যাত্রা নিরাপদ হবে।

এসএসডিসি/আরডিআর

সোনার সিলেট

বিশ্বকাপের ইতিহাসে সবচেয়ে ‘জঘন্যতম’ বোলার রশিদ খান

Published:   12:59:33 PM   Wednesday   ||   Updated: 19 06 2019   12:59:33 PM   Wednesday
বিশ্বকাপের ইতিহাসে সবচেয়ে ‘জঘন্যতম’ বোলার রশিদ খান

সোনার সিলেট ডেস্ক ।। বর্তমান র‌্যাঙ্কিংয়ে টি-টোয়েন্টির সেরা ও ওয়ানডে ক্রিকেটের তৃতীয় সেরা বোলার রশিদ খান। সেই রহস্যময়ী আফগান লেগ স্পিনার কিনা হয়ে গেলেন বিশ্বকাপ ইতিহাসে সবচেয়ে ‘জঘন্যতম’ বোলার! হ্যাঁ, এটাই সত্যি। মঙ্গলবার ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৯ ওভারে ১১০ রান দেওয়ার মধ্যে দিয়ে তিনি এই অপ্রত্যাশিত এই রেকর্ড গড়েন!

এদিন, প্রথমে ব্যাট করে আফগান বোলারদের পিটিয়ে ৩৯৭ রানের পাহাড় সমান স্কোর গড়েছেন ইংলিশরা। এর মধ্যে রশিদ খান একাই দিয়েছেন ১১০ রান। ভাগ্য ভালো যে তিনি নিজের ওভারের কোটা শেষ করেননি। তাহলে ওয়ানডে ক্রিকেটের সবচেয়ে জঘন্যতম (১০ ওভারে ১১৩ রান)বোলার অস্ট্রেলিয়ার মিচেল লুইসকে টপকে যেতেন।

২০০৬ সালের দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে সেই ম্যাচের পরে অবশ্য আর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে দেখা যায়নি লুইসকে। রশিদ খানের ক্ষেত্রে কি হয় সেটা সময়ই বলে দেবে।

এসএসডিসি/আরডিআর

সোনার সিলেট

নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সঙ্গে বাসের ধাক্কা, নিহত ৬

Published:   12:56:33 PM   Wednesday   ||   Updated: 19 06 2019   12:56:33 PM   Wednesday
নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সঙ্গে বাসের ধাক্কা, নিহত ৬

সোনার সিলেট ডেস্ক ।।  বাগেরহাটের ফকিরহাটে যাত্রীবাহী বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সঙ্গে ধাক্কা লেগে ছয়জন নিহত হয়েছেন। এতে অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছেন।শনিবার সকাল সোয়া ৯টার দিকে খুলনা-মাওয়া মহাসড়কের উপজেলার কাকডাঙ্গা বিল এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। তবে হতাহতদের নাম-পরিচয় পাওয়া যায়নি।

ফকিরহাট থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ আবু জাহিদ জানান, সকাল সোয়া ৯টার দিকে লোকাল পরিবহনের যাত্রীবাহী বাসটি খুলনা-মাওয়া মহাসড়কের কাকডাঙ্গা বিল এলাকায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সজোরে রাস্তার পাশে থাকা গাছে আঘাত হানে।

এ সময় ঘটনাস্থলেই পাঁচজন ও পরে ফকিরহাট হাসপাতালে নেয়া হলে আরও একজন নিহত হন। আহত হন বাসের ১৫ যাত্রী। তবে হতাহতদের নাম-পরিচয় জানা যায়নি।

তিনি আরও বলেন, নিহতদের মধ্যে লোকাল বাসের ড্রাইভারসহ বাসের চার যাত্রী ও দুইজন পথচারীর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। আহতদের ফকিরহাট হাসপাতাল ও খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়ছে।

এসএসডিসি/আরডিআর

সোনার সিলেট

প্রেমের টানে স্বামী-সংসার ফেলে খুলনায় জার্মান নারী

Published:   12:55:09 PM   Wednesday   ||   Updated: 19 06 2019   12:55:09 PM   Wednesday
প্রেমের টানে স্বামী-সংসার ফেলে খুলনায় জার্মান নারী

সোনার সিলেট ডেস্ক ।। এবার বাংলাদেশি যুবকের প্রেমের টানে খুলনায় ছুটে এসেছেন জার্মান নারী। অ্যাসটিট ক্রিস্টিয়াল কাসুমী সিউর খুলনার ছেলে আসাদ মোড়লের প্রেমে পড়ে স্বামী-সংসার ফেলে কাসুমী বাংলাদেশে পাড়ি জমিয়েছেন। আসাদের সঙ্গে জার্মান নাগরিকের এমন খবরে এলাকাবাসীর মধ্যে কৌতূহল ছড়িয়ে পড়েছে।

খুলনা মহানগরীর খানজাহান আলী থানার যোগিপোলের যুবক আসাদ মোড়লের কাছে আসার আগে তিনি তার জার্মান স্বামীকে ডিভোর্স দিয়েছেন। খুলনায় এসেই ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে আসাদ মোড়লকে বিয়ে করেছেন।

জানা গেছে, মহানগরীর যোগিপোল ৭নং ওয়ার্ডের ইব্রাহিম মোড়লের ছেলে এমডি আসাদ মোড়লের সঙ্গে দুই বছর আগে ফেসবুকে পরিচয় হয় জার্মানির ক্রিস্টিয়ালের। পেশায় তিনি একজন সার্ভেয়ার। বন্ধুত্ব থেকে একপর্যায়ে দুজনের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। ক্রিস্টিয়াল এই সম্পর্ককে বাস্তবে রূপ দিতে জার্মানির স্বামীকে ডিভোর্স দিয়ে গত ১০ জুন ঢাকায় আসেন। ১১ জুন তিনি আসাদের খোঁজে খুলনায় আসেন এবং একটি হোটেলে ওঠেন। ওই হোটেলেই দুজনের প্রথমবারের মতো সরাসরি দেখা হয়। ১২ জুন ক্রিস্টিয়াল খুলনা নোটারি পাবলিকের মাধ্যমে খ্রিস্টান ধর্ম ত্যাগ করেন এবং ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন। ১৩ জুন কোর্টের মাধ্যমে দুজনের বিয়ে হয়।

স্ত্রী ক্রিস্টিয়াল বলেন, ‘আসাদের সঙ্গে দীর্ঘদিনের সম্পর্ক বাস্তবে রূপ দিতেই আমি বাংলাদেশে আসি। সরাসরি তাকে দেখে বুঝে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করি এবং বিয়ে করেছি। এখন আমরা সুখী।’

এ বিষয়ে আসাদের বাবা ইব্রাহিম মোড়ল বলেন, ছেলে যাকে নিয়ে সুখী হবে তাতে আমাদের কোনো আপত্তি নাই। তবে কখন ভাবিনি সে কোনো বিদেশিনীকে বিয়ে করবে।

আসাদ বলেন, ‘তার জীবনসঙ্গী হতে পেরে আমিও খুবই খুশি।’ ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা সম্পর্কে আসাদ জানান, ক্রিস্টিয়াল এ মাসেই জার্মানি ফিরে যাবেন। তিনি আসাদকেও জার্মানি নেওয়ার চেষ্টা করবেন।

এসএসডিসি/আরডিআর

printars line
সর্বস্বত্ব www.begum24.com কর্তৃক সংরক্ষিত
সোনার সিলেট