১৩ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ভোর ৫:২৮

সিলেটে অস্ত্র ব্যবসায়ী অধিকাংশ বিএনপি-আওয়ামী লীগের

এ টি এম তুরাব
  • আপডেট সোমবার, জানুয়ারি ২৫, ২০২১,

‘অস্ত্রবাজদের ধরতে প্রতিনিয়ত অভিযান চালানো হচ্ছে। এলাকায় যারা অস্ত্রবাজ হিসেবে পরিচিত তাদের তালিকা করা হয়েছে। ওই তালিকায় অনেক রাঘববোয়ালের নাম আছে। কাউকে আমরা ছাড় দিচ্ছি না। সবাইকে আইনের আওতায় আনা হবে।’ এই কথাগুলো সিলেটের পুলিশ সুপার পদমর্যাদার এক কর্মকর্তার।

একই কথা বলেছেন সিলেটে মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার বিএম আশরাফ উল্যাহ তাহের। তিনি বলেন, অস্ত্রবাজদের সঙ্গে কোনো আপস নেই। সবাইকে আইনের আওতায় আনা হচ্ছে।
পুলিশের সূত্রগুলো জানায়, অপরাধীদের কাছে স্পেন ও জার্মানির তৈরি আগ্নেয়াস্ত্র আছে। ওই অস্ত্র ওজনে হালকা, গুলি করার সময় শব্দ ও ঝাকুনি কম সহজেই লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানতে পারে। এ ধরনের পিস্তল সন্ত্রাসীদের কাছ থেকে উদ্ধার হচ্ছে অহরহ। রাজনৈতিক ক্যাডার ও অপরাধীদের পছন্দের তালিকায় রয়েছে ছোট আকারের অস্ত্র। বহন ও ব্যবহারে নিরাপদ বলেই তারা ক্ষুদ্রাস্ত্র ব্যবহারে বেশি আগ্রহী। ৭৫ হাজার টাকা থেকে শুরু করে ৫ লাখ টাকায় মিলছে অত্যাধুনিক অস্ত্র।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, সিলেটে ৪৫ জন কারবারির নিয়ন্ত্রণে আছে আন্ডারওয়ার্ল্ডের অবৈধ অস্ত্রের বাজার। তালিকার পর তালিকা করেও ওইসব কারবারিকে ধরতে হিমশিম খাচ্ছে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা। বছর তিনেক আগে পুলিশের একটি সংস্থা অস্ত্র কারবারিদের এ তালিকা করেছিলো। ওই তালিকায় অনেক রাঘববোয়ালের নাম আছে। তারা আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ, বিএনপি ও ছাত্রদলের রাজনীতির সাথে জড়িত। এরমধ্যে আওয়ামী লীগের ৪ নেতা ও বিএনপির ৬ নেতার নাম রয়েছে। এই তালিকার বাহিরেও আরো অর্ধশতাধিক ব্যক্তি অবৈধ অস্ত্র ব্যবসার সাথে জড়িত রয়েছেন বলে সূত্রটি জানায়। পুলিশ কর্তৃক তৈরি হওয়া এ তালিকাটি জালালাবাদের হাতে এসে পৌঁছেছে। বিভিন্ন দিক বিবেচনা করে এই তালিকাটি প্রকাশ করা সম্ভব হচ্ছে না।

জানা যায়, সিন্ডিকেটগুলো ভারত থেকে বেশিরভাগ আনে ৭ পয়েন্ট ৬৫ এবং ৯ এমএম পিস্তল এবং পয়েন্ট ৩২ রিভলভার। তারা একে ২২ এবং একনলা বন্দুকও আনে। তবে এগুলোর চাহিদা বেশি নেই বলে ওঠে এসেছে পুলিশ তদন্তে।

ভারতে একটি ৭.৬৫ পিস্তলের দাম ২০ হাজার টাকা হলেও বাংলাদেশে তা বিক্রি হয় ৪০-৮০ হাজার টাকায়। ভারতে .৩২ রিভলভারের দাম ২০ হাজার টাকা এবং ৯ এমএম পিস্তলের ৪০ হাজার টাকা। এগুলো এখানে ৭০ থেকে ৯০ হাজার টাকায় বিক্রি হয়।

সূত্র মতে, রাজনৈতিক সহিংসতা, শিক্ষাঙ্গনে আধিপত্য বিস্তার, টেন্ডারবাজি থেকে শুরু করে খুন, ডাকাতি, ছিনতাই কাজে ব্যবহৃত হচ্ছে এসব অবৈধ অস্ত্র। দেশের বিভিন্ন সীমান্ত পথ দিয়ে ঢুকছে আগ্নেয়াস্ত্র। পুলিশের একাধিক কর্মকর্তা এসব তথ্য জানিয়েছেন। তাদের ভাষ্য, সিলেটে বিভাগের চারটি জেলার বিভিন্ন পয়েন্ট দিয়ে অবৈধ অস্ত্রের চালান আসছে। ওইসব সিন্ডিকেট সেগুলো ছড়িয়ে দিচ্ছে সারা দেশে। এসব অস্ত্র মিলছে ভাড়াতেও। অনেক কারবারি রাজনৈতিক নেতাদের আশ্রয়ে আছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

তাদের পদ্ধতি : তদন্তকারীদের মতে, চক্রগুলো আগ্নেয়াস্ত্র কেনা-বেচার জন্য কিছু বিশেষ শব্দ ব্যবহার করে। গাছ, গরু, গাড়ি, হাতি, ৬ একর জমি, ৯ একর জমি এবং বন্য গাছ আগ্নেয়াস্ত্রের জন্য তাদের বহুল ব্যবহৃত কিছু শব্দ। তারা বুলেটের জন্য চারা, বাছুর, লিপস্টিক এবং বীজ শব্দ ব্যবহার করে।
চক্রগুলো বাংলাদেশের ভেতরে অস্ত্র পরিবহনের জন্য মূলত নারী এবং পথ-শিশুদের ব্যবহার করে। একজন নারী এধরনের একটি পরিবহনের জন্য ৩ হাজার টাকা এবং পথ-শিশুরা ১০০ থেকে এক হাজার টাকা পায়।

তদন্তকারীরা জানিয়েছেন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর চোখ এড়ানোর জন্য অস্ত্র পরিবহন করা হয় মিষ্টি বা বিস্কুটের প্যাকেট এবং চাল বা শাক-সবজির ব্যাগে।

এসএমপি সুত্রে জানা গেছে, গত এক বছরে সিলেট মহানগরীর বিভিন্ন এলাকা থেকে ২৯ আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। উদ্ধার অস্ত্রের মধ্যে অনেকটা পরিত্যক্ত অবস্থায় পেয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। এ ঘটনায় মহানগরীর ৬টি থানায় মামলা হয়েছে ১৪টি। আর এসব অস্ত্রের সাথে জড়িত থাকায় ২১ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। উদ্ধার হওয়া অস্ত্রের মধ্যে রয়েছে, দেশী-বিদেশী পাইপগান, দেশী-বিদেশী রিভলভার, পিস্তল। এছাড়া বিপুল পরিমান গুলি ও কার্তুজ উদ্ধার করা হয়।

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের তথ্যমতে উদ্ধারকৃত অস্ত্রের মধ্যে দেশীয় রিভলবার ১টি, বিদেশী রিভলবার ৮টি, বিদেশী পিস্তল ১টি, পাইপগান ৩টি। এছাড়া ২০২০ সালে ৩০ রাউন্ড গুলি, কার্তুজ ২টি এবং ম্যাগাজিন ২টি উদ্ধার করা হয়। এসব অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় মামলা হয়েছে ১৪টি এবং গ্রেফতার হয়েছে ২১ জন। অবৈধ এসব অস্ত্র ব্যবহারকারী অধিকাংশের বয়সই ৩০ এর ভিতরে।

সূত্র : জালালাবাদ

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ধরনের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2016 Paprhi it & Media Corporation
Developed By Paprhihost.com
ThemesBazar-Jowfhowo